ICT

স্মার্ট হোম কি, স্মার্ট হোম বলতে কি বুঝ?

স্মার্ট হোম কি: বর্তমানে বাসস্থান তৈরির জন্য অবকাঠামো, নকশা বা ডিজাইন প্রণয়নের ক্ষেত্রে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির ব্যবহার দিনদিন বেড়ে চলেছে। একটি সুন্দর বাসস্থান তৈরির জন্য অবশ্যই একটি সুন্দর নকশা তৈরি করতে হয়।

কম্পিউটারের মাধ্যমে আমরা সুন্দর সুন্দর নকশা তৈরি করতে পারি। একটি বাড়ি তৈরি করতে কি পরিমাণ
ইট, বালি, সিমেন্ট, রড ইত্যাদি লাগবে বা কত খরচ হবে তা নির্ণয় করতে পারি। আবাসন মেলার মাধ্যমে সুদূর
আমেরিকা প্রবাসী একজন লোক সে দেশ থেকে বাংলাদেশের বিভিন্ন আবাসন প্রকল্পের প্লট কিনতে পারছে বা ক্রয়কৃত প্লটের বিক্রির অর্ডার দিতে পারছে।

পরিকল্পিত বাসস্থান তৈরির মাধ্যমে আমাদের আবাসিক সমস্যা সমাধান করতে পারছি। বাসস্থানের ডিজাইন ও স্টাইল Global Village-এর কল্যাণে পরিবর্তিত হচ্ছে,
বর্তমানে বাসস্থানগুলোতে ওয়ারলেস নেটওয়ার্কের সুবিধা রাখা হয়, যাতে সবাই ইন্টারনেট ব্যবহার করতে
পারেন।

আরো পড়ুনঃ ডিজিটাল টেলিফোন কি

E-mail বা কোনো Website ব্যবহার করে কোনো ফ্ল্যাটে অবস্থানরত প্রত্যেকের মাঝে সহজে সংবাদ
আদান-প্রদান করা যায়। বাসা ভাড়ার সংবাদ এখন Online-এ পাওয়া যায় এবং বাসা ভাড়ার টাকা অনলাইনে পরিশোধ করা যায়।

স্মার্ট হোম কি? স্মার্ট হোম বলতে কি বুঝ?

বর্তমান বিশ্বায়নের যুগে মানুষ এখন আধুনিক বাসস্থান বা স্মার্ট হোম গড়ে তুলেছে। স্মার্ট হোম এমন একটি বাসস্থান, যেখানে রিমোট কন্ট্রোলিং বা প্রোগ্রামিং ডিভাইসের সাহায্যে একটি বাড়ির হিটিং সিস্টেম, কুলিং সিস্টেম, লাইটিং সিস্টেম এবং সিকিউরিটি কন্ট্রোল সিস্টেম ইত্যাদিকে নিয়ন্ত্রণ করা হয়। অর্থাৎ এটি একটি হোম অটোমেশন সিস্টেম।

একটি স্মার্ট হোমে ব্যবহৃত বিভিন্ন ডিভাইস, যেমন- টেলিভিশন, শীততাপ নিয়ন্ত্রিত যন্ত্র (এসি), লাইটিং,
বৈদ্যুতিক পাখা, সিকিউরিটি ক্যামেরা (ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা) ইত্যাদি পরিচালনার জন্য আধুনিক প্রযুক্তিতে
মোবাইল বা রিমোট কন্ট্রোলিং ডিভাইস ব্যবহার করে একটি কেন্দ্রীয় অবস্থান থেকে নিয়ন্ত্রণ করা যায়।

প্রযুক্তির অগ্রগতির ফলে হোম নেটওয়ার্কিং-এর মাধ্যমে একটি বাড়ির নিরাপত্তা, বাহিরের সাথে যোগাযোগ ব্যবস্থা,
বিনোদন ইত্যাদি প্রতিটি সিস্টেমকে আলাদা আলাদাভাবে নিয়ন্ত্রণ এবং এগুলোর সমন্বয় সাধন করা যায়।
স্মার্ট হোম মানুষের জীবনযাত্রাকে একেবারে সহজ এবং ঝামেলাহীন করে তুলেছে।

এছাড়া স্মার্ট হোম শারীরিকভাবে অক্ষম একজন মানুষকে স্বাভাবিক মানুষের মতোই পুরো স্বাধীনতা দিতে পারছে! হুইল চেয়ারে বসা একজন মানুষ শুধু রিমোট কন্ট্রোল ব্যবহার করেই বিভিন্ন নির্দেশ দিয়ে ঘরের প্রায় সব কাজ করিয়ে নিতে পারে।

আমাদের দেশের বাসাবাড়িতে, অফিস-আদালতে এ সিস্টেম চালুর লক্ষ্যে সরকারী দফতর থেকে সব ধরনের টেকনিক্যাল সার্পোট দেওয়া হবে বলে সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ জানিয়েছে।

স্মার্ট হোম সুবিধাসমূহ

  1. ঘরে বসেই ইন্টারনেটের সাহায্যে চিকিৎসকের সাথে সাক্ষাৎ করে স্বাস্থ্য বিষয়ক পরামর্শ নেওয়া যায়।
  2. চোর, ডাকাত কিংবা কোনো সন্ত্রাসী আক্রমণ করলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে স্থানীয় পুলিশকে অবহিত করা যায়।
  3. গাড়ির গ্যারেজ কিংবা ঘরের দরজা-জানালা খোলা বা বন্ধ করার প্রয়োজন হলে তা একটি মাত্র কমান্ডের সাহায্যে করা সম্ভব।
  4. বাহির থেকে বাসায় ফিরে আসার পূর্বেই ডিভাইসের সাহায্যে কমান্ড দিয়ে কুলিং সিস্টেম বা হিটিং
    সিস্টেম অন করে রাখা যায়।
  5. বাহিরে অবস্থান করার সময় সন্ধ্যা হওয়ার সাথে সাথে রুমের পর্দা টেনে দেওয়ার প্রয়োজন হলে সিকিউরিটি অ্যালাম সিস্টেমকে কমান্ড দেওয়া যায়।
  6. বাসার বাহিরে থাকাকালীন সময়ে যদি কোনো অতিথি বাসায় চলে আসে, তবে সিকিউরিটি অ্যালার্মের
    সাহায্যে তা গৃহকর্তার মোবাইল ফোনে জানিয়ে দিবে।
  7. এ. টেলিভিশন, মাইক্রোওয়েব ওভেন, রেফ্রিজারেটর, ওয়াশিং মেশিন, বৈদ্যুতিক পাখা, লাইট ইত্যাদি
    ডিভাইস একটি মাত্র কমান্ডের সাহায্যে কিংবা রিমোট কন্ট্রোলের সাহায্যে সহজে এমনকি বিছানায়
    শুয়েই পরিচালনা করা সম্ভব।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button