অনলাইন ব্যবসা

অনলাইন ব্যবসা করার নিয়ম || কিভাবে অনলাইন ব্যবসা শুরু করবেন

অনলাইন ব্যবসা করার নিয়ম : ব্যবসা একটি স্বাধীন পেশা। কম বেশি সব মানুষই চাই নিজেস্ব একটা ব্যবসা দাড়করাতে। বর্তমান সময়ে অনলাইনের অবদানে একটা ব্যবসা দাড়করানো যতটা সহজ ঠিক ততটাই কঠিন। কারণ প্রতিযোগীর পরিমানও আগের চেয়ে কয়েকগুণ বেড়েছে।

প্রাযুক্তিক জ্ঞানকে কাজে লাগিয়ে একজন সফল উদ্যোক্তা হয়ে ওঠা যায়। এর জন্য প্রয়োজন যথেষ্ট ধৈর্য এবং পরিশ্রম। এখানে তারাই লোকসানের সম্মুখীন হয় যারা কোনো কিছু না বুঝে ব্যবসা করার জন্য হুমড়িখেয়ে পড়ে। সব কিছু যেনে বুঝে ব্যবসা শুরু করলে লাভ করার চেয়ে লস করাটাই বেশি কঠিন। অনলাইন ব্যবসা করার নিয়ম

কিভাবে অনলাইন ব্যবসা শুরু করবেন
অনলাইন ব্যবসার ধাপগুলি

তো আজকে আমরা অনলাইনে ব্যবসা শুরু করার নিয়ম সম্পর্কে জানব। আমরা বিষয়টা ধারাবাহিকভাবে আলোচনা করবো তাই ধৈর্য সহকারে পড়বেন।

অনলাইনে ব্যবসা শুরু করার জন্য যে পদক্ষেপগুলো নিতে হবে তা হলো-
১. পণ্য নির্বাচন বা প্রডাক্ট সিলেক্ট।
২. ব্রান্ড নির্ধারণ।
৩. ডেলিভারি।
৪. ব্যবসা লাইভ।
৫. মার্কেটিং।

ফেইসবুক মার্কেটিং

নিচে অনলাইন ব্যবসা করার নিয়ম গুলো বিস্তারিত আলোচনা করা হল:

১. পণ্য নির্বাচন বা সিলেক্ট প্রডাক্ট

অনলাইন ব্যবসা করার নিয়ম
অনলাইন ব্যবসা করার নিয়ম

অনলাইন কিংবা অফলাইনে ব্যবসা শুরু করার প্রাথমিক ধাপ হলো প্রডাক্ট সিলেক্ট করা। আপনি অনলাইনে ব্যবসা করতে হলে আপনাকে প্রথমে একটা প্রডাক্ট সিলেক্ট করতে হবে।অনলাইন ব্যবসা করার নিয়ম

আর আপনি যেহেতু ব্যবসাটা অনলাইনে করবেন তাই হালকা ধরনের পণ্য নির্বাচন করুন। যাতে পণ্য সহজে গ্রাহকেরা কাছে পৌছানো যায়।

প্রডাক্ট সিলেক্টের ক্ষেত্রে আপনাকে মাথায় রাখতে হবে যে, আপনি যে প্রডাক্টটা অনলাইনে বিক্রি করতে চাচ্ছেন সেটা মানুষ অনলাইনে ক্রয় করে কিনা।

এমন অনেক প্রডাক্ট আছে যে গুলো মানুষ হাতে ধরা ছাড়া কিনে না। তাই আপনাকে প্রডাক্ট সিলেক্ট এর ক্ষেত্রে দুইটা বিষয় চিন্তা করতে হবে-

প্রথমত আপনি যে প্রডাক্টটা সিলেক্ট করবেন সে প্রডাক্টটা মানুষ অনলাইনে কিনে কিনা। সেই সাথে এর কম্পিটিশন কেমন তাও দেখতে হবে। কারণ কম্পিটিশন বেশি হলে সেল জেনারেট করাটা একটু কঠিন হয়ে যায়।

দ্বিতীয়ত যে বিষয়টা চিন্তা করবেন এই প্রডাক্টটা পর্যাপ্ত পরিমাণ যোগান আছে কিনা। অর্থাৎ আপনি যে প্রডাক্টটা বিক্রি করতে চাচ্ছেন সেটাকি আপনি নিজে তৈরি করছেন নাকি অন্য কোথাও থেকে সংগ্রহ করছেন।

আপনি যদি প্রডাক্টটি সোর্সিং করে থাকেন আপনার সে প্রডাক্ট সোর্স সব সময় থাকবে কিনা। কারণ আপনি যখন ব্যবসাটি শুরু করবেন তখন মাঝপথে গিয়ে যদি আপনার প্রডাক্টটের যোগান দিতে না পারেন বা যোগান বন্ধ হয়ে যায় সেক্ষেত্রে আপনাকে ব্যবসাটা বন্ধ করে দিতে হবে।

তো প্রডাক্ট পর্যাপ্ত পরিমাণ আছে কিনা সে জিনিসটা আপনাকে মাথায় রাখতে হবে।

২. ব্রান্ড নেইম নির্ধারণ

কিভাবে অনলাইন ব্যবসা শুরু করবেন
অনলাইন ব্যবসা করার নিয়ম

ব্রান্ড নেইম ব্যবসার সাথে সরাসরি জড়িত না হলেও এটি পরোক্ষভাবে আপনার ব্যবসাকে প্রাভাবিত করে। ব্রান্ড নেইম হলো ব্যবসার নাম বা টাইটেল।

অবশ্যই আপনার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের জন্য সুন্দর একটা নাম নির্ধারণ করবেন। আপনি যে ধরণের প্রডাক্ট বিক্রি করবেন তার সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ একটি নাম দিবেন। যাতে গ্রাহকদের সহজে মনে থাকে।

আপনি যখন প্রথম ক্রেতার কাছে প্রডাক্ট সেল করবেন এবং আপনি যদি তার বিশ্বাস অর্জন করতে পারেন। নিঃসন্দেহে সে আরো কয়েকটি ক্রেতা আপনার কাছে এনে দিবে। সেক্ষেত্রে আপনার ব্রান্ড নেইমটি সহজ এবং সুন্দর হলে তারও মনে রাখতে সুবিধা হবে।

৩. ডেলিভারি [অনলাইন ব্যবসা করার নিয়ম]

অনলাইন ব্যবসা করার নিয়ম

এরপর যে জিনিসটা আপনাকে মাথায় রাখতে হবে সেটা হচ্ছে আপনি কিভাবে প্রডাক্ট ডেলিভারি করবেন। যখনই ব্যবসাটি অনলাইনে লাইভ হয়ে যাবে তখন যেকোনো সময় আপনার অর্ডার আসতে পারে।

তো আপনি যদি ব্যবসা লাইভ করার পর ডেলিভারির কথা চিন্তা করেন সেক্ষেত্রে আপনি কিছু জটিলতায় পড়বেন। তাই প্রডাক্ট ডেলিভারি করার কথাটা আগেই ভাবতে হবে।

এখন প্রডাক্ট ডেলিভারির ব্যাপারটা আপনি নিজে ডেলিভারি করতে পারেন, ডেলিভারির জন্য আপনি কাউকে রাখতে পারেন অথবা আমাদের দেশে বিভিন্ন ডেলিভারি কোম্পানি আছে তাদের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন৷

ডেলিভারি কোম্পানি গুলোর মধ্যে ডেলিভারি টাইগার রয়েছে যারা ঢাকা সিটিতে এবং ঢাকার বাইরে সারা দেশে প্রডাক্ট ডেলিভারি করে থাকে। আপনি চাইলে তাদের সাহায্য নিতে পারেন।

৪. ব্যবসা লাইভ [অনলাইন ব্যবসা করার নিয়ম]

কিভাবে অনলাইন ব্যবসা শুরু করবেন
কিভাবে অনলাইন ব্যবসা শুরু করবেন

এবার হচ্ছে আপনি আপনার ব্যবসা কিভাবে অনলাইনে লাইভ বা শুরু করবেন। কিভাবে আপনার প্রডাক্টটা অনলাইনে নিয়ে আসবেন সেটা হয়তো আপনি চিন্তা করে পাচ্ছেন না। অনলাইনে একটি ব্যবসাকে তিনভাবে লাইভ করতে পারেন-

★ বাংলাদেশে যে মার্কেটপ্লেস গুলো রয়েছে আপনি সেগুলো ব্যবহার করতে পারেন। যেমন দারাজ, আজকের ডিল। এখানে ইতিমধ্যে অনেক কাস্টমার রয়েছে।

আপনার যদি মার্কেটিং বাজেট না থাকে
সেক্ষেত্রে এখানে একটি সেলার একাউন্ট খুলে সেখানে আপনি আপনার প্রডাক্ট বিক্রি করতে পারেন।

মার্কেটপ্লেস গুলোতে সরাসরি আপনার প্রডাক্ট ডিটেইল, ছবি এবং সেগুলো আপলোড করে প্রডাক্ট সেল করতে পারেন।অনলাইন ব্যবসা করার নিয়ম

★ একটা ই-কমার্স সাইট খুলে নিজেই নিজের ব্যবসা শুরু করতে পারেন। সেক্ষেত্রে আপনাকে কিছু টাকা খরচ করতে হবে এবং এক্সপার্টদের সাহায্য নিতে হবে।

★ ফেইসবুক পেইজ-
বর্তমানে ফেইসবুকে ব্যবসা অনেক জমে উঠেছে। আপনি যে ব্রান্ড নেইমটি নির্বাচন করবেন সে নাম দিয়ে একটা ফেইসবুক বিজনেস পেইজ খুলবেন। এরপর আপনার ফেইসবুক পেইজটাকে ভালোভাবে অপটিমাইজড করতে হবে।

অপটিমাইজড করা বলতে পেইজের ইউজার নেইম, ডেসক্রিপশন, কাভার ফোটো, প্রফাইল পিকচার, লোগো এসবগুলোকে ভালোভাবে অপটিমাইজড করে আপনার পেইজটাকে একটা প্রফেশনাল আউটলুক দিবেন। কারণ কেউ যদি আপনার পেইজটি এলোমেলো অবস্থায় দেখে তাহলে বিশ্বাস করবে না।

এমনিতেই আমাদের দেশে অনলাইন প্রতারণার আধিক্যের কারণে ক্রেতাদের বিশ্বাস অর্জন করা বেশ চ্যালেঞ্জিং একটা বিষয়।

৫. মার্কেটিং [অনলাইন ব্যবসা করার নিয়ম]

কিভাবে অনলাইন ব্যবসা শুরু করবেন

মার্কেটিং এর আসল বিষয়গুলো যদি আপনি না জানেন তাহলে এটি আপনার কাছে খুবই বিরক্তিকর মনে হবে। বিশ্বের সব বড় বড় কোম্পানিগুলো বেশি টাকা খরচ করে মার্কেটিং বা প্রচারণায়।

আপনার পণ্যের গুণগত মান যতই ভালো হোক সঠিক প্রচারণা না থাকলে সেল জেনারেট করাটা বেশ কঠিন। লাখ লাখ পণ্যের মধ্যে আপনার পণ্যটি কিভাবে ক্রেতার কাছে পৌঁছে দিবেন সেটাই হচ্ছে চ্যালেঞ্জিং বিষয়।

আপনি যদি ফেইসবুকে পেইজের মাধ্যমে ব্যবাসা করতে চান সেক্ষেত্রে নিচের কোর্সটি করতে পারেন। কারণ ফেইসবুকে পেইজ খুলে রাখার মানে এই নয় যে আপনি প্রচুর অর্ডার পাবেন। কারণ আপনার মতো অনকেই পেইজ খুলে বসে আছে। এখানে মূল বিষয়টা হচ্ছে মার্কেটং।অনলাইন ব্যবসা করার নিয়ম

আপনার টার্গেটেড ক্রেতাদের কাছে আপনার প্রডাক্ট পৌঁছে দেওয়াই হচ্ছে মার্কেটিং এর মূল লক্ষ্য। বর্তমানে অনেকেই ফেইসবুকে ব্যবসা পরিচালনা করছে কিন্তু যথাযথ কৌশল এবং মার্কেটিং দক্ষতা না থাকার কারণে সবাই সুবিধা করতে পারেনা।

কোর্সটি আপনার ব্যবসার প্রফিট কয়েকগুন বাড়িয়ে দিতে পারে। অর্থাৎ মার্কেটিং সম্পর্কে পূর্নাঙ্গ ধারণা পেতে কোর্সটি অবশ্যক।অনলাইন ব্যবসা করার নিয়ম

কোর্সটির ভিত্তি মূল্য ১২৫০ টাকা ১০% ডিস্কাউন্ট পেতে এই প্রোমো কোডটি ব্যবহার করুন FB1125AFF এই অফারটি ৩১-১২-২০২২ পর্যন্ত চালু থাকবে।

এখানে ফেসবুক পেজ, গ্রুপ এবং ফেসবুকে বুস্টিং সম্পর্কে বিস্তারিত শিখে আপনার ফেসবুক ব্যবসাকে পৌঁছে দিন টার্গেট কাস্টমারের কাছে। আজই এনরোল করে শিখুন ফেসবুক মার্কেটিং-এর খুঁটিনাটি।

এখন পর্যন্ত ২৫ হাজারের ও বেশি মানুষ এই কোর্সটি করেছেন।অনলাইন ব্যবসা করার নিয়ম

কোর্সটি করে যা শিখবেন

★ নিজের ব্যবসার বিক্রি বাড়ানোর কৌশল।

★ নিজের বিজনেসকে শক্তিশালী ব্র্যান্ড হিসেবে দাঁড় করানোর উপায়।

★ নতুন কাস্টমার আকর্ষণ করা ও পুরাতন কাস্টমার ধরে রাখার জন্য উপযুক্ত কন্টেন্ট বানানোর পদ্ধতি।

★ ফেসবুকের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ফিচারের ব্যবহার, ফেসবুক পেজ ও ফেসবুক গ্রুপের অর্গানিক রিচ বাড়ানো, ফেসবুক বুস্টিং ও ফেসবুক অ্যাড ম্যানেজারের মাধ্যমে বিজ্ঞাপন দেয়া।

তো এগুলই হচ্ছে অনলাইন ব্যবসা করার নিয়ম

আপনি চাইলে কোর্সটি না করেও সামাজিক মাধ্যম থেকে বিষয়গুলো শিখতে পারেন। এক্ষেত্রে প্রচুর সময় নষ্ট হবে করণ সবগুলো ভিডিও আপনি এক সাথে পাবেন না। এছাড়া এডভান্স লেভেলের বিষয় গুলো কেউ খোলামেলা আলোচনা করেনা।

তারপরও আপনার যদি প্রবল আগ্রহ থাকে আপনি কোর্স ছাড়াও সফল হতে পারবেন যদি আপনার অনেক পরিশ্রম করার মানসিকতা থাকে।

এরকম অনলাইনেই ব্যবসা সংক্রান্ত বিষয়ে জানতে আমাদের ওয়েবসাইটটি নিয়মিত ভিজিট করুন।

অনলাইন ব্যবসা করার নিয়ম অনলাইন ব্যবসা করার নিয়ম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button